তিলের তেল কেন ব্যবহার করবেন? তিলের তেলের উপকারিতা
তিলের তেল কেন ব্যবহার করবেন? তিলের তেলের উপকারিতা

তিল আমাদের দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম তেলবীজ ফসল। তিল এবং তিলের তেল খাদ্য হিসাবে সর্বাধিক জনপ্রিয় খাদ্য উপাদান। এটি শরীরের পুষ্টির সমস্যাগুলি দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমাদের তেল সরাসরি উত্তরবঙ্গ কৃষকদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়, যার কারণে আমরা এই তেলের তেল, গুণ, মান এবং বিষাক্ততার জন্য 100 শতাংশ গ্যারান্টি দিতে পারি। সুতরাং, তিল এবং তিলের তেল স্বাস্থ্যকর হতে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আমাদের সবার জানা দরকার।

তিলের তেল (Sesame oil) মূলত একটি এডিবল ভেজিটেবল অয়েল। রান্নায় এর ব্যবহার সচেয়ে বেশি হয়ে থাকে, তবে, সৌন্দর্য চর্চাতেও কিন্তু এর বেশ খ্যাতি রয়েছে। তিলের তেল বেশ উচ্চমাত্রায় পুষ্টিকর, কেননা এই তেল বেশি কিছু অ্যাসেনশিয়াল ভিটামিন যেমন- ভিটামিন ই, বি কমপ্লেক্স ও ডি সমৃদ্ধ। পাশাপাশি এই তেলে আছে কপার, জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস। এছাড়াও তিলের তেলে রয়েছে ফ্যাটি এসিড। এর মধ্যে ৪১% লিনলিক এসিড, ৩৯% অলিক এসিড, ৮% পালমিটিক এসিড এবং ৫% স্টেরিক এসিড আছে।

চুলের যত্নে নানা ধরনের তেল ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এসব তেলের মধ্যে তিলের তেল অন্যতম। তিল থেকে তৈরি এই তেল প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের গুরুত্বপূর্ণ উৎস। এতে রয়েছে ভিটামিন ই, বি কমপ্লেক্স, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, রিবোফ্লাবিন, থিয়ামিন, প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড, নিয়াসিন, ফলিক অ্যাসিড, লোহা, সেলেনিয়াম, জিংক ও প্রোটিন যা চুলের গোড়ায় পুষ্টি জোগায় ও চুলকে ভঙ্গুরতা থেকে রক্ষা করে। ফেমিনা অবলম্বনে লিখেছেন সানজিদা সামরিন

খাঁটি তিল তেল Pure Sesame Oil ক্রায় করুন এখান থেকে

এখন নারীরা অনেক বেশি চুল পড়ার সমস্যায় ভুগছেন। সে ক্ষেত্রে চুলের গোড়ায় যদি তিলের তেল খুব ভালোভাবে ম্যাসাজ করা যায় তাহলে চুল পড়ার সমস্যা রোধ হওয়ার পাশাপাশি গাজাবে নতুন চুল। রং করার ফলে চুলের যে ক্ষতি হয় তাও রোধ করতে পারে এই তিলের তেল।

  1. সকালে যদি তিলের তেল প্রচুর পরিমাণে সেবন করা হয়, যদি একটি ফাইবার তিলের সাথে খাওয়া হয় তবে জোর এবং পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়। পাশাপাশি দাঁতগুলি এত বেশি শক্তিশালী হয়ে ওঠে যে এটি বৃদ্ধ বয়সে চলে না, আঘাত করে না বা পড়ে না।
  2. এভাবে তিলের সমস্যা একই সাথে হ্রাস পায়।
  3. বাচ্চাদের অনেক সুবিধা রয়েছে benefits বলা হয় যে চুনের মাত্রা বেশি, তাই এটি শিশুদের জন্য উপকারী। শিশুরা প্রতিদিন তিল বা তিল দিয়ে পূর্ণ থাকে।
  4. এই খারাপ অভ্যাসটি শিশুরা রাতে বিছানায় প্রস্রাব পান করে এবং তার সাথে এক টুকরো ভাত খাওয়ায় eliminated
  5. শরীরের পোড়া জায়গায় তিলের পাইলস, ঘি মিশিয়ে পানির সাথে মিশিয়ে পানির মিশ্রণ খুব তাড়াতাড়ি পাওয়া যায়। তিল তেল গরম, কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে ভাল ফলাফল পাওয়া যায়।
  6. যদি শরীরের কোনও অংশ খুব বিরক্ত হয় তবে এটি দুধের সাথে মিশিয়ে জ্বালা বা জ্বালা দূর করবে।
  7. তাজা ক্ষত বা ক্ষত যদি সার না দেয় তবে তিল এবং মধু ও ঘি মিশিয়ে খেলে অনেকগুলি ওষুধ বা ওটের চেয়ে বেশি কাজ পাওয়া যায়।
  8. ব্যথার ব্যথায় হুড এবং কব্জায় মিশ্রিত তিলের তেল ম্যাসেজ করলে দ্রুত পাওয়া যাবে।
  9. শীতকালে গালে বা ঠোঁটে এমনকি হাত পাতে তিলের তেল প্রয়োগ করা উপকারী।
  10. রসুন দিয়ে গরম করা তিলের কানের ব্যথা কানের ব্যথায় নিরাময় করা যায়।
  11. তিলের তেলের আর একটি বিশেষ গুণ হ’ল তেলটি বাতের ব্যথা সেরে নেয়।
  12. তিলের তেল সারা শরীরের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে যায় এবং তাড়াতাড়ি হজম হয় এবং শরীরকে সুস্থ রাখে।
  13. তিল তেলের উপকার বা পুষ্টির মান জলপাই তেলের চেয়ে কম নয়। লবণ তেল স্বাদের চেয়ে জলপাই তেলের চেয়ে ভাল।
  14. যতক্ষণ না তেল স্টুলকে বেঁধে রাখে এবং পুরানো মলটি বের করে দেয়। সুতরাং, তেল গন্ধের বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে।
  15. মহিলাদের যদি ঋতুস্রাব না হয় এবং খুব ব্যথা হয় তবে তিলের তেল খেতে হবে। দুই চা চামচ তিল নিয়ে এক গ্লাস জলে সেদ্ধ করে নিন। আপনি যদি এক চতুর্থাংশ জল পান করেন তবে তা মাসিকের মতো হবে।
  16. তিল, যব, চিনি এবং মধুর সাথে মিশ্রিত হয়ে গেলে তাদের বাচ্চা হবে, যথাঃ সাগরভা এবং যাদের বাচ্চা রয়েছে, অর্থাৎ জন্ম বা গর্ভকালীন রক্তপাত বন্ধ হয়ে যায়।
  17. কালো তিলের এক টুকরো, চিনি দু’টি এবং ছাগলের চার টুকরা দুধ একসাথে রক্ত-আমের সার মিশ্রিত করে।
  18. মুরগীর সাথে তিল ও চিনি মিশিয়ে মধু মিশিয়ে মধু মিশিয়ে খেলে বাচ্চাদের মল থেকে রক্ত ​​পড়া বন্ধ হয়।
  19. তিলের বীজ, নাগাস্কার [কবিরাজি স্টোরগুলিতে পাওয়া যায়] এবং চিনি একসাথে মিশিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়।
  20. তিলের বীজের সাথে মিশ্রিত হয়ে মাখনের সাথে মিশ্রিত হওয়ার পরে রক্ত ​​এবং প্রস্রাবের লালচেভাব প্রস্রাবে কমে যায়।
  21. কালো তিল খাওয়ার পরে, পানির পরে খানিকটা জল পান করার পরে দাঁত শক্ত হয়, শরীর সুস্থ থাকে এবং রক্তনালীগুলি আরামে পাওয়া যায়।
  22. দশ থেকে পনের মিনিটের সাথে টিল তেল মুখে রেখে কাঁপুনিযুক্ত দাঁত শক্ত হয়ে ওঠে এবং পিয়োরিয়াস [দাঁতের রোগ] কেটে যায়।
  23. দাঁতে ব্যথা হলে তিলের তেল মিশ্রিত করে এবং তেল গরম করে একটি হিং বা কালো কুটিরগুলিতে স্বাচ্ছন্দ্যে পাওয়া যায়। এই তেল তুলার মুখে রাখা যেতে পারে।
  24. হলুদ বা ছোপযুক্ত জোয়ারের সাথে মিশ্রিত হয়ে এলে তিলের তেল গরম করে পেট ছোঁড়ে বা ম্যাসাজ করুন।
  25. মোম এবং লবণের সাথে মিশ্রিত তিলের তেল গোড়ালি ছড়িয়ে পড়ে।
  26. ইয়োয়ান, হুড, রসুন বা হিং দিয়ে তেল গরম করা হলে এবং তার সাথে গরম তেল গরম করলে যৌথের [গিঁটের] ব্যথা কমে যায়। বাত ব্যতীত অন্যান্য চিকিত্সায় প্রচুর সুবিধা পাওয়া যায়।
  27. এক মাস গরম করার পরে তিলের তেল ভর করে, এক মাসে হালকা আলো আসে, অনিয়ন্ত্রিত ত্বক হয়, সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়, চুলকানি পরিষ্কার হয়।
  28. গরম তিলের তেল মিশ্রিত গুঁড়ো গরম তেল মিশ্রিতকরণ, কোমরের ব্যথা দূর করে, জয়েন্টগুলোতে ব্যথা হয়, অঙ্গগুলি লিঙ্গ হয়ে যায় ইত্যাদি দূর করে
  29. তিলের তেলের কানের ব্যথা রসুনের রস দিয়ে উত্তপ্ত করা হয় এবং তারপরে কান ভাল হয়ে যায়।
  30. যখন চুনের জল তেল মিশ্রিত করা হত এবং তিলের তেল মিশ্রিত করা হত, তখন আগুনে পোড়া পোড়া পোড়া হত।
  31. পোড়া অংশে শুধুমাত্র গরম তিলের তেল মিশ্রিত পাওয়া যায়।

খাঁটি তিল তেল Pure Sesame Oil ক্রায় করুন এখান থেকে

স্বাস্থ্যরক্ষায় তিলের তেল

১) অকালে চুল পেকে যাওয়া রোধ করে, নিয়মিত মাথার স্ক্যাল্প ম্যাসাজ করতে হবে।

২) আথ্রাইটিস পেইন-এর ক্ষেত্রে এই তেল খাবার তেল হিসেবে ব্যবহার এবং মালিশ দুটোই করলে উপকার পাবেন।

৩) রান্নায় এই তেলের ব্যবহার ব্লাড প্রেশার কমায়।

৪) ডায়েটে এই তেলের ব্যবহার স্ট্রেস ও ডিপ্রেশন কমায়।

৫) রান্নায় তিলের তেলের ব্যবহার ইনসুলিন এবং গ্লুকোজ লেভেল ঠিক রাখে বলে ডায়াবেটিস-এর রোগীরা এটাকে নিয়মিত খাবারের তেল হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

চুলের যত্নে তিলের তেল ব্যবহার করতে পারেন নিয়মিত

যেভাবে চুলে ব্যবহার করবেন

  • ৩ টেবিল চামচ তিলের তেলের সঙ্গে ১ চা চামচ মধু মেশান। মিশ্রণটি আঙুলের সাহায্যে চুলের গোড়ায় ম্যাসাজ করুন। চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ভালো করে লাগিয়ে গরম তোয়ালে জড়িয়ে রাখুন মাথায়। ৪০ মিনিট অপেক্ষা করে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন চুল।
  • সমপরিমাণ তিলের তেল ও নারকেল তেল একসঙ্গে মিশিয়ে চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ম্যাসাজ করুন। গরমা পানিতে তোয়ালে ডুবিয়ে চুল জড়িয়ে রাখুন। ৪০ মিনিট পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে প্রাকৃতিক কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।
  • ২ টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেলের সঙ্গে পরিমাণ মতো তিলের তেল মিশিয়ে হালকা গরম করে নিন। মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় ম্যাসাজ করুন। আধা ঘণ্টা অপেক্ষা করে ভেষজ শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
  • ২ টেবিল চামচ তিলের তেলের সঙ্গে ১ টেবিল চামচ টক দই ওয়াধা চা চামচ হলুদ গুঁড়া মেশান। মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় লাগিয়ে শাওয়ার ক্যাপ পরে নিন। আধা ঘণ্টা পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
  • ২ টেবিল চামচ তিলের তেলের সঙ্গে ১ টেবিল চামচ আদার রস মেশান। মিশ্রণটি চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ভালো করে লাগিয়ে অপেক্ষা করুন। আধা ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে নিন।
  • সমপরিমাণ তিলের তেল ও ক্যাস্টর অয়েল চুলের গোড়ায় লাগান। কিছুক্ষণ পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কেন চুলের যত্নে তিলের তেল ব্যবহার করবেন?

  • চুলের গোড়ায় রক্ত চলাচল বাড়িয়ে এটি চুলের বৃদ্ধি বাড়ায়।
  • চুলের ভেঙে যাওয়া রোধ করে।
  • চুল পড়া বন্ধ করে।
  • চুলের অকালে পেকে যাওয়া রোধ করে।
  • আগা ফাটা দূর করে।
  • খুশকি দূর করে।

তথ্য: বোল্ডস্কাই

খাঁটি তিল তেল Pure Sesame Oil ক্রায় করুন এখান থেকে

তিলের তেল চুল পড়া কমায়

তিলের তেলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই ও বি, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস ও প্রোটিন রয়েছে; যা চুল সুস্থ রাখতে খুবই জরুরি। নিয়মিত মাথার ত্বকে ও চুলে তিলের তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে চুল পড়া কমে, খুশকি দূর হয়, নতুন চুল গজায়, চুলের গোড়া শক্ত হয়, চুলের রুক্ষতা ও মাথার ত্বকের সংক্রমণ জাতীয় সমস্যা দূর হয়।

তিলের তেল চুলে কীভাবে ব্যবহার করবেন এবং এটি চুলে কতটা কার্যকর সে সম্বন্ধে কয়েকটি পরামর্শ দেওয়া হয়েছে বোল্ডস্কাই ওয়েবসাইটের লাইফস্টাইল বিভাগে।

চুল পড়া কমায়

দুশ্চিন্তার কারণে অনেক সময় চুল পড়ে যায়। প্রতিদিন ঘুমানোর আগে মাথায় তিলের তেল দিয়ে ম্যাসাজ করুন। দেখবেন, দুশ্চিন্তা দূর হবে, ঘুম ভালো হবে ও চুল পড়া অনেকটা কমে যাবে।

খুশকি দূর করে

হালকা গরম তিলের তেল দিয়ে কয়েক মিনিট মাথার ত্বক ম্যাসাজ করুন। আধা ঘণ্টা অপেক্ষা করুন। এক সপ্তাহ এভাবে নিয়মিত মাথায় এই তেল ব্যবহার করুন। দেখবেন খুশকি একেবারে দূর হয়ে যাবে।

প্রাকৃতিক কন্ডিশনারের কাজ করে

তিলের তেল চুলে প্রাকৃতিক কন্ডিশনারের কাজ করে। প্রথমে তিলের তেল হালকা গরম করে মাথার ত্বকে পাঁচ থেকে ১০ মিনিট ভালোভাবে ম্যাসাজ করুন। আধা ঘণ্টা অপেক্ষা করুন। এবার পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

চুলের রুক্ষতা দূর করে

নিয়মিত তিলের তেল দিয়ে চুল ও মাথার ত্বক ম্যাসাজ করুন। এবার শ্যাম্পু করে বেশি করে চুল কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। এটি আপনার চুলের রুক্ষতা দূর করে চুল নরম ও মসৃণ করবে।

নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে

তিলের তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে মাথার ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যায়। এর ফলে নতুন চুল গজায়। এই তেল চুলকে গভীর থেকে সুস্থ রাখে এবং নিয়মিত ব্যবহারে চুলের ভেঙে যাওয়া সমস্যা দূর হয়।

মাথার ত্বকের চুলকানি কমায়

অনেক সময় মাথার ত্বকের সংক্রমণের কারণে মাথায় চুলকানির সমস্যা হয়। তিলের তেল সহজেই এই সংক্রমণ দূর করে। এই তেল হালকা গরম করে মাথার ত্বকের ম্যাসাজ করুন। দেখবেন, ধীরে ধীরে মাথার তালুর সংক্রমণ দূর হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

My Cart (0 items)

No products in the cart.